অর্শ বা পাইলস কি, কেন হয়, লক্ষণ সমূহ | হোমিওপ্যাথি ও ঘরোয়া চিকিৎসা

পাইলস কি | লক্ষন, কারন ও প্রতিকার ও চিকিৎসা হোমিওপ্যাথি
Please wait 0 seconds...
Scroll Down and click on Go to Link for destination
Congrats! Link is Generated
Symptoms of Piles
অর্শ বা পাইলস কি, কেন হয় লক্ষণ সমূহ, হোমিওপ্যাথি ও ঘরোয়া চিকিৎসা

পাইলস

মলাশয় ও মলদ্বারের চারপাশে রক্তনালির স্ফীতি এবং বৃদ্ধি পাওয়াকে অর্শ বলে । এটা দেখতে অনেকটা কাঁঠালের মুচির মত । এটা ফুলে যায় এবং মলত্যাগের সময় চাপ ( ক্বোথ ) দিলে বের হয়ে আসে । আবার আঙ্গুল দ্বারা ভিতরে ঢোকানো যায় ।

 কোষ্ঠকাঠিন্য এবং শক্ত মলের প্রতিনিয়ত চাপের ফলে এ রোগ বেশি দেখা যায় । অনেক সময় কারও কারও ক্ষেত্রে  রক্ত মিশ্রিত কঠিন মল নির্গত হয় । মলদ্বারে জ্বালা ও অস্বন্তিকর যন্ত্রণা হয় , বসতে কষ্ট হয় , মলদ্বারে মাংসপিন্ড বৃদ্ধি পায় । কখনো মলের সাথে রক্ত মিশ্রিত পূঁজ নির্গত হয় 

পাইলস বা হেমরয়েড্স হলো একটি আমুদ্রের সমস্যা, যা সমাজে একটি মন্দগতি প্রদর্শন করে এবং কমলে আপনার জীবনে অসুখের কারণ হতে পারে। পাইলস বা হেমরোইডস হলো একটি মলাশয়ের একটি রোগ যার ফলে বায়ু, মল এবং প্রজালে প্রদাহে সমস্যা সৃষ্টি হয়। এই সমস্যার ফলে প্রাথমিকভাবে ব্যথা, জ্বর, অস্বস্তি এবং রক্তস্রাব হয়ে থাকে।

পাইলসের দুই প্রকার :

  • বাহ্যিক পাইলস
  • অভ্যন্তরীণ পাইলস।

বাহ্যিক পাইলস হলো মলাশয়ের বাইরের পাইলস, যেগুলো মলাশয়ের বাইরে বেরহয়ে যায়।

অভ্যন্তরীণ পাইলস হলো মলাশয়ের ভেতরে গুলি, যা প্রকারে ক্ষেত্রে বায়ুর সাথে মিশে থাকে।

পাইলস এর উপায়ে চিকিৎসা সম্পন্ন করার জন্য ব্যাপক প্রাকৃতিক চিকিৎসা পদ্ধতির পাশাপাশি ঔষধ এবং স্থায়ী চিকিৎসা প্রয়োজন হতে পারে। সেইসাথে সমস্যা এবং উপকারী ঔষধ খাওয়া নিয়ম মেনে চলা চিকিৎসকের থেকে পরামর্শ নেওয়া উচিত। আপনার যদি পাইলসের লক্ষণ দেখা যায়, তা ব্যক্তিগত চিকিৎসার জন্য চিকিৎসা প্রদান করার জন্য ভালো জানে এমন ডাক্তারের সাথে পরামর্শের করুন।

এই নিবন্ধে, আমরা পাইলসের লক্ষণ, সমস্যা, চিকিৎসা এবং এই সমস্যার সাথে যোগাযোগ করার সঠিক পদক্ষেপ নিয়ে আলোচনা করব।

পাইলস কেন হয়?

কিছু কিছু জিনিস পাইলস এর ঝুঁকি বাড়ায়, সেই সাথে ইতোমধ্যে কারো পাইলস রোগ হয়ে থাকলে তার তীব্রতাও বাড়িয়ে দেয়, যেমন—

  • শক্ত বা কষা পায়খানা
  • মলত্যাগের সময় জোরে চাপ দেয়া
  • অনেক সময় ধরে মলত্যাগের কসরত করা
  • পায়খানার বেগ আটকে রাখা
  • শারীরিক পরিশ্রম না করা 
  • অতিরিক্ত ওজন

এছাড়া গর্ভাবস্থায় নানান শারীরিক পরিবর্তনের কারণেও কারও কারও ক্ষেত্রে পাইলস এর ঝুঁকি বেড়ে যায়।

স্বাভাবিক অবস্থায় পায়খানার রাস্তা বা পায়ুপথের মুখ সাধারণত বন্ধ থাকে। যখন প্রয়োজন হয়, তখন চাপ দিয়ে পায়ুপথের মুখ খুলে শরীর থেকে পায়খানা বা মল বের করে দেওয়া হয়।

পায়ুপথের মুখ বন্ধ রাখতে সেখানে বেশ কিছু জিনিস একসাথে কাজ করে। তার মধ্যে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ হল অ্যানাল কুশন। এই কুশনগুলো ৩ দিক থেকে চাপ দিয়ে পায়ুপথের মুখ বন্ধ রাখতে সাহায্য করে।

যদি কোনো কারণে তিন দিকের এই কুশনগুলো ফুলে যায়, সেগুলো থেকে রক্তক্ষরণ হয়, সেগুলো নিচের দিকে নেমে যায়, অথবা পায়ুপথের চারপাশে গোটার মত দেখা যায়, তখন তাকে পাইলস বা অর্শ রোগ বলা হয়ে থাকে।

পাইলসের লক্ষণ:

রক্তের বৃদ্ধি: পাইলসের সবচেয়ে সাধারণ লক্ষণ হলো বৃদ্ধি বা গোলকেয় সুজ যা গুদের বাইরে বা ভেতরে দেখা যায়।

ব্যাথা এবং অস্বস্তি: পাইলসের সাথে সাথে ব্যাথা এবং অস্বস্তি অনুভব করা হয়, সাধারণভাবে বৃদ্ধির জোরে বা প্রশ্রয়নে এটি বেশি হতে পারে।

রক্তস্রাব: পাইলসের কারণে কিছু সময় গুদে রক্তস্রাব হতে পারে, যা লোহিত ক্যালারে হতে পারে এবং এটি পায়ে অসুখের অভিনয় হতে পারে।

প্রস্রাবন অনুভব করা: পাইলসের কারণে প্রস্রাবনের সময় বা পরবর্তীতে প্রস্রাবনের সময় ব্যথা অনুভব করা সাধারণ হতে পারে।

মলদ্বার এলাকায় বায়ুত্ব: পাইলসের সাথে মলদ্বার এলাকায় বায়ুত্ব অনুভব করাও ।

  • মল ত্যাগের সময় ক্বোথ দিলে কাঁঠালের মুচির মতো বের হয়ে আসে ; (কারো কারো ক্ষেত্রে বের হয়না) 
  • মলের সাথে তাজা রক্ত পরে , কখনো পায়খানার আগে অথবা পরে ;(কারো কারো ক্ষেত্রে রক্ত যায় না 
  • কোমরে ও তল পেটে ব্যথা হয় ।
  •  রক্ত স্বল্পতা দেখা দেয় ; 
  • রোগী পায়খানায় বসতে ভয় পায় । 
  • পায়খানা করার সময় অথবা পরে পায়ুপথে ব্যথা হয়। 

পাইলসের সমস্যা:

ব্যক্তিগত সমস্যা: পাইলস সাধারণভাবে ব্যক্তিগত সমস্যা, যা ব্যক্তিগত জীবনে অসুখের কারণ হতে পারে। এটি ব্যক্তিগত জীবনের সাথে ব্যক্তিগত সমস্যা এবং আত্মবিশ্বাস হ্রাস করতে পারে।

প্রাকৃতিক সমস্যা: পাইলসের কারণে ব্যক্তির প্রাকৃতিক সমস্যাও হতে পারে, যেমন স্থলানুসারী স্থানে স্যানিটেশন প্রশ্ন, স্থূলবাদ, এবং অন্যান্য সমস্যার সাথে অধিক মানসিক আপত্তি সহিত থাকতে পারে।

পাইলসের চিকিৎসা এবং ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ:

যখন আপনি পাইলসের সাথে সমস্যা অনুভব করেন, তখন অবশ্যই একজন চিকিৎসকে দেখাবেন। একজন প্রশাসনিক ডাক্তার বা প্রোক্টলজিস্ট আপনার সমস্যার সঠিক নিরীক্ষণ করে এবং চিকিৎসা প্রদান করবেন। চিকিৎসক আপনাকে চিকিৎসার প্রয়োজন হলে নির্দেশ করবেন এবং আপনাকে প্রয়োজনীয় ঔষধ বা অপারেশনের সাথে যোগাযোগ করতে বলবেন।

চিকিৎসা সাধারণভাবে আমুদ্রে হয় এবং কোনও গম্বুজ বা স্থলানুসারী স্থানে প্রয়োজন হতে পারে। সাধারণভাবে, ঔষধ এবং স্থানীয় চিকিৎসা প্রয়োজন হতে পারে, কিন্তু গতিশীল পাইলস বা সমস্যার জন্য অপারেশন সাধারণভাবে প্রয়োজন হয় না।

পাইলস এর চিকিৎসা কোথায় ভালো হয়

পাইলস বা হেমরোইডস রোগের চিকিৎসা ভালো করার জন্য নিম্নলিখিত কিছু মৌলিক উপায় রয়েছে:

1. বৃদ্ধি প্রতিরোধ ও প্রতিরক্ষা: প্রাথমিক উপায় হিসেবে, পর্যাপ্ত পানি পান করা, প্রাকৃতিক খাবার খেতে সাবধান থাকা, সক্রিয় জীবনযাপন এবং বয়স করা খোলামেলা সম্পর্কিত প্রমোশন করা গুরুত্বপূর্ণ।

2. দক্ষ চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ ও চিকিৎসা: যদি পাইলসের লক্ষণ প্রসারিত হয়, তবে দক্ষ চিকিৎসকের সাথে পরামর্শের জন্য দ্রুত যোগাযোগ করা গুরুত্বপূর্ণ। তাঁর পরামর্শ মেনে চলে সঠিক চিকিৎসা প্রদান করা হয়ে যেতে পারে।

3. ঔষধ প্রয়োগ: কিছু পাইলস এর উপকারী ক্রিম, গোলাপী তেল, এবং পিলস জনিত ব্যথা মোক্ষণ এর জন্য ঔষধ প্রয়োগ করা হতে পারে।

4. লেজার থেরাপি: সেভ অপারেশন পাইলস এর জন্য লেজার থেরাপি অন্তর্ভুক্ত করা যেতে পারে, যা আপনার পাইলস সমস্যার সাথে সাথে ব্যাপকভাবে সম্প্রদায়গত চেয়ার ভাগের ক্ষেত্রে সক্ষম হয়।

5. স্থায়ী সমাধান: প্রাথমিক চিকিৎসা থেকে উপকার না পাওয়া গেলে পাইলসের জন্য স্থায়ী সমাধান যেমন স্ক্লেরোথেরাপি, ব্যাণ্ডিং বা পুল্লিঙ প্রক্রিয়ার মতো প্রক্রিয়াগুলি ভালো হতে পারে।

উপরে উল্লিখিত চিকিৎসা পদ্ধতি ও প্রয়োগের মধ্যে সম্মিলিত সামগ্রী যেমন আপনার অবস্থার উপর নির্ভর করে। সমস্যা সমাধানের জন্য প্রতিষ্ঠিত ও অভিজ্ঞ ডাক্তারের সাথে পরামর্শের প্রয়োজন থাকতে পারে।

পাইলস এর ঘরোয়া চিকিৎসা

পাইলস রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা কিছু উপায়ে সাহায্য করতে পারে, কিন্তু এই প্রক্রিয়াগুলি সেবন করার আগে ডাক্তারের পরামর্শ গ্রহণ করা গুরুত্বপূর্ণ। প্রকৃতপক্ষে ঘরোয়া চিকিৎসা প্রয়োজনে ব্যবহার করা যেতে পারে:

1. সিটজ বাথ: গরম পানিতে অস্থির থাকা এবং প্রস্তুতির ব্যথা কমাতে সিটজ বাথ ব্যবহার করা যেতে পারে। এটি প্রকারে পাইলস থেকে বুদ্ধির জন্য ব্যবহৃত হয়।

2. শুকনো পানির বাথ: পাইলস স্থানে শুকনো পানির বাথ করা হতে পারে, যা প্রস্তুতির ব্যথা ও সমস্যা কমাতে সাহায্য করতে পারে।

3. ধূপস্নান: পাইলস এর ঘরোয়া চিকিৎসা গুলির একটি হতে পারে ধূপস্নান এর ব্যবহার, যা প্রস্তুতির ব্যথা ও সমস্যা কমাতে সাহায্য করতে পারে।

4. সুশ্রাব: এটি সাধারণভাবে পাইলস থেকে বুদ্ধির জন্য ব্যবহৃত হয়, যা ব্যথা এবং অস্বস্তি কমাতে সাহায্য করতে পারে।

5. পাইলস বাম বা প্রস্তুতি মলাশয়ের উপর দাবি: কিছু ঘরোয়া চিকিৎসা হল পাইলস বাম বা প্রস্তুতি মলাশয়ের উপর দাবি প্রয়োজনে ব্যবহৃত হতে পারে।

এই ঘরোয়া চিকিৎসা প্রয়োজনে এই উপায়ের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করা হতে পারে, কিন্তু যেকোনো প্রয়োজনে ডাক্তারের পরামর্শ অনুসরণ করা গুরুত্বপূর্ণ। প্রয়োজনে সঠিক চিকিৎসা প্রদানের জন্য ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন এবং উপযুক্ত প্রেসক্রিপশন অনুসরণ করুন।

কখন দ্রুত হাসপাতালে যাবেন?

পাইলসহলে কিছু বিশেষ ক্ষেত্রে দ্রুত ডাক্তারের শরণাপন্ন হওয়া জরুরি। যেমন—

  • টানা ৭ দিন বাসায় চিকিৎসা নেয়ার পরেও অবস্থার উন্নতি না হলে
  • বারবার পাইলস এর সমস্যা হলে
  • ৫৫ বছরের বেশি বয়সী কারও প্রথমবারের মত পাইলস এর লক্ষণ দেখা দিলে
  • পাইলস থেকে পুঁজ বের হলে
  • জ্বর বা কাঁপুনি হলে, অথবা খুব অসুস্থ বোধ হলে
  • অনবরত রক্তক্ষরণ হলে
  • অত্যধিক রক্তপাত হলে (উদাহরণস্বরূপ, যদি কমোডের পানি লাল হয়ে যায় বা পায়ুপথ দিয়ে  রক্তের বড় বড় চাকা যায়)
  • তীব্র, অসহনীয় ব্যথা হলে
  • পায়খানার রঙ কালচে বা আলকাতরার মত কালো মনে হলে

পাইলস এর অপারেশন

ঘরোয়া চিকিৎসার উপদেশ এবং ডাক্তারের ঔষধ সেবনের পরামর্শগুলো সঠিকভাবে মেনে চলার পরেও যদি অর্শ রোগের এর সমাধান না হয়, সেক্ষেত্রে অপারেশনের প্রয়োজন হতে পারে। এ ব্যাপারে আপনার চিকিৎসক আপনাকে পরামর্শ দিবেন। সাধারণত ৩ ধরনের অপারেশন করা হয়ে থাকে—

১. হেমোরয়েডেকটোমি: এই অপারেশনের মাধ্যমে পাইলস এর গোটাগুলো কেটে অপসারণ করা হয়। 
২. স্টেপলড হেমোরয়েডোপেক্সি: এই পদ্ধতিতে সার্জারির মাধ্যমে পাইলস এর গোটাগুলো পুনরায় পায়ুপথের ভেতরে ঢুকিয়ে দেয়া হয়।

৩. হেমোরয়েডাল আর্টারি লাইগেশন: এক্ষেত্রে পাইলস এর গোটাগুলোর রক্ত সরবরাহ অপারেশনের মাধ্যমে বন্ধ করে দেয়া হয়, যাতে গোটাগুলো শুকিয়ে যায়।

এসব অপারেশনের জন্য সাধারণত এনেসথেসিয়া বা চেতনানাশক ব্যবহার করে রোগীকে অজ্ঞান করা হয় এবং সার্জারির পর দুই-একদিন হাসপাতালে থাকার প্রয়োজন হতে পারে।

এলোপ্যাথিক চিকিৎসা : অর্শের কোনো সুচিকিৎসা হয় না। অস্ত্রোপচার ছাড়া কোনো গতি নেই। কিন্তু তাতেও রোগ নির্মূল হতে পারে না। অতএব প্রথম থেকেই অর্গানন অনুসরনকারী হোমিওপ্যাথিতে চিকিৎসা করাই বুদ্ধিমানের কাজ। যে পুরাতন রোগ বীজ রোগীর দেহে বর্তমান রোগের সৃষ্টি করেছে সেই ধাতুগত দোষ দূরিকরণার্থে উপযুক্ত ওষুধ সেবন না করলে শুধু অস্ত্রোপচার বা এলোপ্যাথি ওষুধ খেলে কোনো লাভ হবে না।

পরামর্শ ( Advice )

১ . প্রচুর পরিমাণে আশসমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ করুন ; 

২ . পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি পান করুন ;

৩ .  নিয়মিত ব্যায়াম করুন ; 

৪. মলত্যাগের জন্য অতিরিক্ত কোথ দেওয়া পরিহার করুন ;

৫ . কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে সতর্ক থাকুন ; 

৬ . নিয়মিত ব্যায়াম ও প্রাতঃ ভ্রমণ করুন । প্রচুর শাকসবব্জি , ফলের রস  এবং লঘুপাক খাদ্য গ্রহণ করুন । লাল মরিচ , মাংস , বেগুন , শুঁটকি এবং গরম মসলাযুক্ত দ্রব্যাদি পরিহার করে চলুন । কৃমির উপদ্রব থাকলে  নিয়মিত কৃমির ওষুধ সেবন করুন । 

৭ . কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার জন্য সকালে এবং রাতে চিনি বা গুড় ছাড়া ইসুবগুলের ভুসির শরবত পান করুন ।

৮ . মলদ্বারে ভেসলিন লাগালে অনেক সময়  উপকার পাওয়া যায় ;

৯ . নিঃশ্বাসের ব্যায়াম করতে হবে ( অর্থাৎ দিনে দুই বার ১০ মিনিট করে মুখ বন্ধ রেখে নাক দিয়ে লম্বা করে শ্বাস নিন , শ্বাসের সাথে মলদ্বার ও তলপেট উপরের দিকে টানুন বা Contraction এবং মুখ দিয়ে শ্বাস ছাড়ার সময় মলদ্বার ও তলপেট ধীরে ধীরে ছাড়তে থাকুন বা Relax করুন । 

১০ . প্রয়োজনে গামলা ভর্তি হালকা/কুসুম গরম পানিতে ২ চামচ লবণ দিয়ে ১০ মিনিট দিনে ১-২ বার বসে থাকতে হবে।

১১ . দীর্ঘক্ষণ বসে অথবা দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে কাজ করবেন না। 

১২ . কোথ দিয়ে পায়খানা করবেন না ।

১৩. ফাস্টফুড, জাংক ফুড, প্রসেসড ফুড , বোতল জাত খাবার, বিয়ে বাড়ির ভারী খাবার খাবেন না। 

 দ্রুত চিকিৎসকের সাথে সরাসরি দেখা করুন , সঠিক চিকিৎসায় বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই   অপারেশন ছাড়া পাইলস ভালো হয়ে যায়।

শেষ কথা:

পাইলস একটি প্রচলিত স্বাস্থ্য সমস্যা যা সঠিক চিকিৎসা এবং যত্নের সাথে সমাধান করা যেতে পারে। যদি আপনি পাইলসের লক্ষণ অনুভব করেন, তবে দ্রুত একজন চিকিৎসকে দেখানো গুরুত্বপূর্ণ এবং সমস্যার সঠিক চিকিৎসা প্রদান করা হবে। প্রচেষ্টা করতে ভুলবেন না এবং আপনার স্বাস্থ্য সম্পর্কে সাবধান থাকতে হবে যেন পাইলসের সমস্যার জন্য আপনি সার্থক চিকিৎসা এবং যত্ন পেতে পারেন।

About the Author

Hey! I'm Daud, Currently Working in IT Company BD. I always like to learn something new and teach others.

Post a Comment

To avoid SPAM, all comments will be moderated before being displayed.
Don't share any personal or sensitive information.
Cookie Consent
We serve cookies on this site to analyze traffic, remember your preferences, and optimize your experience.
Oops!
It seems there is something wrong with your internet connection. Please connect to the internet and start browsing again.
AdBlock Detected!
We have detected that you are using adblocking plugin in your browser.
The revenue we earn by the advertisements is used to manage this website, we request you to whitelist our website in your adblocking plugin.
Site is Blocked
Sorry! This site is not available in your country.